অর্জুন গাছের পরিচয় ও হেকিমী চিকিৎসা

আমাদের চারপাশে জন্মানো বিভিন্ন গাছ-গাছরা ও লতা-পাতা দিয়ে আমরা ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা করে থাকি। হেকিমী চিকিৎসা মানুষের রোগ নিরাময়ের জন‌্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। হেকিমী বা ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার জন‌্য বিভিন্ন রকম গাছ-গাছরার মধ‌্যে অর্জুন গাছ অন‌্যতম। এখানে অর্জুন গাছের পরিচয়, এর বিভিন্ন নাম ও অর্জুন গাছ দিয়ে বিভিন্ন রোগের হেকিমী চিকিৎসা সংক্রান্ত তথ‌্য নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা

অর্জুন গাছের পরিচয়

অর্জুন গাছের বিভিন্ন ভাষায় বিভিন্ন নাম রয়েছে। বাংলা ভাষায় এটি অর্জুন গাছ নামেই পরিচিত। সংস্কৃত ভাষায় অর্জুন বা কোকুভ নামে পরিচিত। হিন্দি ভাষায় এই গাছটিকে বলা হয় কই। এর Latin নাম হল Terminalia Ariuna, ইংরেজি নাম Ariuna Tree. এটি একটি কমব্রেটিসী (Combretaceae) জাতীয় বৃক্ষ। ঔষধ তৈরি করার জন‌্য এই গাছের পাতা ও ছাল ব‌্যবহার করা হয়।

অর্জুন গাছের গুণাগুণ

অর্জুন গাছের ঔষধ হৃদপিণ্ডের বলকারক। শরীরের রক্ত বৃদ্ধি করে। ভাঙ্গাস্থানের নিরাময় করে। শরীরের ভাঙ্গা হাড় সংযোজন করে। অর্জুন গাছের ঔষধ দ্বারা শরীরের ক্ষত, ক্ষয় নিরাময় করার জন‌্য হেকিমী চিকিৎসা করা হয়। এছাড়াও অর্জুন গাছের ঔষধ শরীরের রক্ত পরিষ্কারক, রক্ত পিত্ত ও কফ নাশক।

মাথা থেকে পা পর্যন্ত সর্বত্র অর্জুন গাছের ঔষধ কাজ করে। তবে মাথা থেকে বুক পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি কাজ করে। স্নায়ুর উপর অর্জুর গাছের ঔষধের কাজ বেশি। তাই মাথা থেকে পা পর্যন্ত ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা করতে অর্জুন গাছ অতুলনীয়।

অর্জুন গাছ নিয়ে বিভিন্ন মনীষীদের মতামত

চরক বলেছেন- রক্ত কাশি ও ফোঁড়াতে অর্জুন গাছের ঔষধ ব‌্যবহার করা যায়।
বাণভট্ট বলেছেন- মূত্র রোধে অর্জুন গাছের ঔষধ উপকারি।
চক্রদত্ত বলেছেন- অস্তিভঙ্গ ও হৃদরোগে অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসায় বিশেষ উপকার পাওয়া যায়।
ভাবপ্রকাশ বলেছেন- যক্ষা কাশিতে অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা অব‌্যর্থ।
সুশ্রুত বলেছেন- শুক্র তারল‌্যে অর্জুন গাছের ঔষধে সুফল পাওয়া যায়।
Dr. Everson ১৮৯০ খ্রীঃ হৃদপিণ্ডের উপর প্রয়োগ করে অপূর্ব ফল পান।

যেসব লক্ষণ দেখা দিলে অর্জুন গাছের ঔষধ প্রয়োগ করতে হয়

যেসব লক্ষণ দেখা দিলে অর্জুন গাছের ঔষধ প্রয়োগ করতে হয় তা নিচে দেয়া হলোঃ

মানসিক সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: মানসিক বিভিন্ন রকম লক্ষণ যেমনঃ সবসময় উৎকন্ঠিত ভাব। ভীষণ চিন্তিত থাকা। একা একা থাকতে চাওয়া। সব সময় চিন্তিত থাকা। এই যেন কি ঘটে যাবে সেই সঙ্গে বুক ধরফড় করা এসব বিভিন্ন রকম লক্ষণ দেখা দিলে অর্জুন গাছের ঔষধ দিয়ে হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

মাথার বিভিন্ন সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: মাথা ভারী ভারী ভাব অনুভুত হওয়া। মাথা তুলতে যেন কষ্ট হচ্ছে এমন অনুভব হওয়া। মাথা পিছনের দিকে ভারী হওয়া এসব বিভিন্ন রকম সমস‌্যায় অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

কানের সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: কানে যেন কে ড্রাম পেটাচ্ছে এমন অনুভব হওয়া। কানের মধ‌্যে গুণগুণ আওয়াজ হওয়া। মনে হয় কে যেন গান গাইছে এমন অনুভব হওয়া। এসব সমস‌্যা দেখা দিলে অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

মুখের সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: মুখে কোন খাবারের স্বাদ লাগে না। তিক্ত স্বাদ বা তিতা তিতা লাগে এমন অনুভব হওয়া। গলা শুকিয়ে যাওয়া এবং পিপাসা থাকা। এসব সমস‌্যা অনুভব করলে অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

ক্ষুধার সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: অনেকের ক্ষেত্রে একটু পরপর ক্ষুধা লাগে। ক্ষুধমন্দা হওয়া, বমি বমি ভাব হওয়া। এ ধরনের সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ঔষধ প্রয়োগ করা যায়।

কোষ্ঠকাঠিন‌্য হলে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: কোষ্ঠবদ্ধতা বা কোষ্ঠকাঠিন‌্য এ ধরনের সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ঔষধের হেকিমী চিকিৎসা খুবই উপকারী। এছাড়াও অল্প অল্প ফোঁটা ফোঁটা প্রসাব হওয়া। প্রস্রাবে জ্বালা যন্ত্রনা হওয়া প্রভৃতি সমস‌্যায় অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

নিঃশ্বাস নিতে সমস‌্যা হলে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: নিঃশ্বাস নিতে সমস‌্যা যেমনঃ বুকটা যেন চেপে ধরছে এমন অনুভব হওয়া। শ্বাস রোধ হয়ে আসছে। সব সময় বুকে হাত দিয়ে চলাফেরা করতে হয়। উপরে সিঁড়িতে উঠতে কষ্ট হয়, দীর্ঘ নিঃশ্বাস নিতে হয় এমন সমস‌্যা দেখা দিলে। আবার, বুকের মধ‌্যে ব‌্যাথা হয়, মনে হয় যেন কি বিঁধছে। বুক চেপে ধরলে আরাম হয়। ঠান্ডা বা পাখার হাওয়া ভালো লাগে এমন লক্ষণ দেখা দিলে অর্জুন গাছের ঔষধের হেকিমী চিকিৎসা খুবই উপকারী।

হৃদপিণ্ডের সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: হৃৎপিণ্ডে ভীষণ স্পন্দন, যেমন দম বন্ধ হয়ে আসছে। কাশি হয়, সেই সাথে বুকে সুই বিঁধছে এমন অনুভব হওয়া। বাইরে থেকে হৃদপিণ্ডের উঠা নামা দেখতে পাওয়া যায়। সামান‌্য চলাফেরা করলে হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়। Angina Pactoris বা হৃদশূল বেরিবেরি বা কোনো ভারী অসুখের পর হৃদপিণ্ড দুর্বল হয়ে পড়লে অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা অপূর্ব কাজ করে। অনেক জ্বর হলেও অর্জুন গাছের ঔষধ দেওয়া যায়, এক্ষেত্রে দুধসহ সেবন করতে হবে।

ঘুমের সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: ঘুম হয় না অর্থাৎ নিদ্রাহীনতা। সারারাত স্বপ্ন দেখে মারামারি করছে এমন হওয়া, আত্মহত‌্যা করছে, চোখ বন্ধ করলেই ভয় ভয় ভাব অনুভব হওয়া প্রভৃতি সমস‌্যা দেখা দিলে অর্জুন গাছের ঔষধের হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

পুরুষ জননেদ্রিয়তে সমস‌্যা হলে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: পুরুষদের জননেদ্রিয়তে বিভিন্ন রকম সমস‌্যায় অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা খুবই উপকারী। যেসব পুরুষদের সঙ্গমের সময় বুক ধরফড় করে। ঠিকমতো সঙ্গম করতে পারে না অর্থাৎ স্ত্রীকে সুখি করতে পারে না। সঙ্গমের সময় মনে ভয় ভয় ভাব অনুভব করে। এসব বিভিন্ন রকমের যৌন সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ঔষধ দিয়ে হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

স্ত্রী জননেদ্রিয়তে সমস‌্যা হলে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: এছাড়াও স্ত্রী জননেদ্রিয়তে বিভিন্ন রকম সমস‌্যায় অর্জুন গাছের ঔষধ দিয়ে চিকিৎসা করা যায়। অনেক মেয়েদের ক্ষেত্রে সঙ্গম করার ইচ্ছা কমে যায়। সঙ্গমের নাম নিলেই বা সঙ্গমের কথা মনে হলেই ভয় অনুভব করে। ঋতুকালীন ভয়, উদ্বিগ্নতা, শ্বেতপ্রদর বা রক্তপ্রদরে ভুগে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে এবং বুক ধরফড় করে। এসব সমস‌্যায় অর্জুন গাছের হেকিমী চিকিৎসা করা যায়।

কাশির জন‌্য অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: ক্ষয়রোগগ্রস্ত ব‌্যক্তির কাশিতে বাসক চিংচার সহ যদি কাশির সঙ্গে রক্ত বের হয় তবে একালিফা ইনড ও বাসক সহ প্রয়োগ করলে সুন্দর ফল দেয়।

রক্তরোধে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: রক্তপিণ্ডের চিকিৎসায় অর্জুন গাছের ঔষধ খুবই ফলপ্রসু। হাইগ্রাফিলার সঙ্গে ব‌্যবহারে ভালো ফল দেয়। এছাড়াও রক্তরোধে যেমনঃ দুর্বাঘাস সহ তা আঘাত জনিত হোক বা অন‌্য কোন কারণে রক্ত বন্ধ করতে এটি খুব উপকারী।

শরীরে আঘাত পেলে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: শরীরের সকল প্রকার আঘাতে অর্জুন গাছের ঔষধ খুবই কার্যকরি। পতন জনিত বা যে কোন আঘাতে উপকারী। Allopathic Tenderil Analgin হোমিওপ্যাথি আর্ণিকা, রুটা হাইপেরিকাম, সিমফাইটাম প্রভৃতির মতো।

হাড় ভেঙ্গে গেলে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: ডাঃ ইভইনের মতে, হাড় ভেঙ্গে গেলে বা হাড়ে আঘাত লাগলে অর্জুন গাছের ঔষধের প্রলেপ খুবই ফলপ্রদ। অর্জুন ছাল ও রসুন সমপরিমাণে ঠাণ্ডা পানিতে বেটে প্রলেপ দিলে ভাঙ্গা হাড় জোড়া লেগে যায়। তবে এটি দুধ ও ঘি এর সঙ্গে মিশিয়ে সেবন করা উচিত।

Low Blood Pressure হলে অর্জুন গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা: Low Blood Pressure এর চিকিৎসায় অর্জুন গাছের ঔষধ অপূর্ব কাজ দেয়। দুধসহ সেবন করতে হবে।

হোমিওপ্যাথিক- মাদারটিংচার (Q) ৫-১০ ফোঁটা বয়সানুসারে বা ব‌্যাধির প্রকোপ অনুযায়ী দিনে দুই থেকে তিনবার প্রয়োগ করা যেতে পারে।

জবা ফুলের পরিচয় ও ঔষধি গুণগুণ

অতিরিক্ত ঋতুস্রাব, অনিয়মিত মাসিক স্রাব, চোখ ওঠা, সর্দি ও কাশি, অতিরিক্ত প্রস্রাব, টাক-পোকার আক্রমণ, চুলের বৃদ্ধি, পাকা চুল কালো করতে ইত‌্যাদি বিভিন্ন সমস‌্যা হলে জবা ফুলের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা বা হেকিমী চিকিৎসা জানতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন।

জবা ফুল দিয়ে ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা জানতে এখানে ক্লিক করুন

কালমেঘ এর পরিচয় ও হেকিমী চিকিৎসা

মনভোলা রোগ, মস্তক এর রোগ, নাকের সমস‌্যা, চোখের সমস‌্যা, মুখমন্ডল এর সমস‌্যা, জিভ, পাকস্থলী, উদর গহ্বর, মুত্র, মল, শ্বাসযন্ত্র, প্রষ্ঠদেশ, হাত-পা, চর্ম ইত‌্যাদি রোগের জন‌্য কালমেঘ এর হেকিমী চিকিৎসা জানতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন।

কালমেঘ এর ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা জানতে এখানে ক্লিক করুন

নিম গাছের পরিচয় ও হেকিমী চিকিৎসা

মন ভোলা, মাথা ধরা, চোখের সমস‌্যা, কান, নাক, মুখমন্ডল, মুখগহ্বর, গলদেশ, পাকস্থলী, উদর, মল, স্ত্রী জননেন্দ্রিয়, প্রস্রাব, শ্বাসযন্ত্র, হাত-পা, ঘুম, জ্বর, চর্ম রোগ ইত‌্যাদি বিভিন্ন রোগ হলে নিম গাছের ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা জানতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন।

নিম গাছ দিয়ে ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা জানতে এখানে ক্লিক করুন

মিঠা পাট গাছের পরিচয় ও হেকিমী চিকিৎসা

রক্ত আমাশয়, পেট খারাপ, প্রস্রাবের রোগ, পেটে যন্ত্রণা, অগ্নিমান্দ‌্য, লিভারের দোষ, পায়খানা অপরিষ্কার, অবিরাম জ্বর ইত‌্যাদি বিভিন্ন রোগ হলে পাট গাছ দিয়ে ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা সম্পর্কে জানতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন।

পাট গাছ দিয়ে ভেষজ বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা জানতে এখানে ক্লিক করুন